Home > সারাদেশ > দুই সিটি কর্পোরেশনের কোরবানির বর্জ্য অপসারণে বিশেষ উদ্যোগ

দুই সিটি কর্পোরেশনের কোরবানির বর্জ্য অপসারণে বিশেষ উদ্যোগ

মহামারি করোনা ভাইরাসের মধ্যে সংক্রমণ ও আতঙ্কের সাথে কোরবানির ঈদ। দুই সিটি কর্পোরেশনের দম ফেলার সময় নেই। পরিবেশ সুরক্ষা ও দূষণমুক্ত রাখতে কোরবানির বর্জ্য অপসারণে বাতিল হয়েছে দুই সিটির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি। কোরবানির নির্দিষ্ট স্থান নির্ধারণ থেকে শুরু করে নেয়া হয়েছে নানা উদ্যোগ। কোরবানির হাট থেকে পশু জবাই, এরপর বর্জ্য অপসারণ। করোনা সংক্রমণের শঙ্কায় পুরো প্রক্রিয়া ঠিকভাবে শেষ করতে দেখা দিয়েছে সংশয়। রাজধানীবাসীকে নিশ্চিন্ত করতে কোরবানির বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় সহজ কিছু নিয়ম আর যুগপোযোগী পরিকল্পনা নিয়েছে দুই সিটি কর্পোরেশন।

উত্তর সিটিতে ২৫৬ এবং দক্ষিণ সিটিতে ওয়ার্ড ভিত্তিক ৭৫ টি কোরবানির স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রস্তুত রয়েছে বর্জ্য অপসারণের জন্য ভারী ও হালকা ৭৩০ টি যানবাহন, ৯৩ টন ব্লিচিং পাউডার এবং ৬ হাজার ৬শ’ লিটার তরল জীবাণুনাশক। ইতোমধ্যে বিলি করা হচ্ছে বর্জ সংগ্রহের জন্য কয়েক লাখ বিশেষ ব্যাগ। আর কোরবানি পরবর্তী ও হাট সংলগ্ন ১৫ হাজার টন বর্জ্য অপসারণে কাজ করবেন সাড়ে ১৭ হাজার পরিচ্ছন্নতাকর্মী।

ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশ ও বাংলাদেশ ডেইরি ফার্ম অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে ডিজিটাল হাটের আওতায় বিক্রি ছাড়াও আড়াই হাজার গরু জবাই এবং মাংস কেটে বাসায় পৌঁছে দেয়ার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। যা পর্যবেক্ষণে থাকছেন উত্তরের মেয়র নিজে।

কোরবানির পশুর দামের প্রতি হাজারে ১৫ টাকার বিপরীতে এই সেবা নিতে পারবেন যে কেউ। আর নিজ উদ্যোগে যারা কোরবানি দেবেন, করোনার সংক্রমণরোধে তাদের সচেতন হওয়ার আহ্বান দুই সিটি কর্পোরেশনের।

Loading...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*